ঢাকা, শনিবার, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৬ মে ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

কম দামি আইফোন আনছে অ্যাপল

মনিরুল হক ফিরোজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-২৩ ২:৩৪:৫৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৪-২৩ ৩:০৭:৩২ পিএম

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : গত বছরে অ্যাপল প্রথমবারের মতো তাদের ১ হাজার মার্কিন ডলার মূল্যের ফোন নিয়ে আসে। ‘আইফোন এক্স’ অ্যাপলের ইতিহাসে শুধু সবচেয়ে দামি ফোনই নয়, সেই সঙ্গে সবচেয়ে উন্নত মডেলও। এতে পুরো ডিভাইস জুড়ে প্রসারিত স্ক্রিন ব্যবহৃত হয়েছে এবং উন্নত ফ্রন্ট সেন্সরগুলো ফেস স্ক্যান করে ফোনটির সুরক্ষা নিশ্চিত করে।

তবে আগামী সেপ্টেম্বরে এই ফিচার পাওয়ার জন্য আপনাকে সম্ভবত ৯৯৯ মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হবে না। ব্লুমবার্গ, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল, মরগ্যান স্ট্যানলি এবং কেজিআই সিকিউরিটিজসহ বেশ কয়েকটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, তারা আশা করছেন অ্যাপল এ বছরে কম দামে বড় স্ক্রিনের আইফোন বাজারে ছাড়বে।

বাজার বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান কেজিআই সিকিউরিটিজ জানিয়েছে, নতুন আইফোনের দাম ৫৫০ থেকে ৬৫০ ডলারের মধ্যে হতে পারে। সেপ্টেম্বরে অ্যাপল নতুন আইফোন উন্মোচন করবে, তখন দামের ব্যাপারটি স্পষ্ট হবে।

নতুন আইফোনের ব্যাপারে এখন পর্যন্ত যেসব তথ্য জানা গেছে
ধারণা করা হচ্ছে, আইফোনের আসন্ন তিনটি মডেলের একটি হবে সাশ্রয়ী মূল্যের। বাকি দুইটি মডেলের একটি আইফোন এক্স-এর আপডেট ভার্সন এবং আরেকটি আইফোন এক্সের চেয়ে বেশ বড় স্ক্রিনের হবে।

কেজিআই সিকিউরিটিজের অ্যানালিস্ট মিং-চি কুও জানিয়েছেন, সাশ্রয়ী দামের নতুন আইফোনের বিক্রি সবচেয়ে ভালো হতে পারে। তার মতে, আইফোনের আসন্ন সিরিজ ৬৫-৭৫ শতাংশ বিক্রি হতে পারে।

নতুন আইফোনে এজ-টু-এজ স্ক্রিন এবং ফেসিয়াল রিকগনেশন প্রযুক্তি থাকতে পারে। আইফোন এক্সের তুলনায় দাম কম হওয়ার একটি কারণ এটা হতে পারে যে, আইফোন এক্সের ওএলইডি স্ক্রিনের পরিবর্তে এতে এলইডি স্ক্রিন ব্যবহার করা হচ্ছে। ওএলইডি স্ক্রিন কম শক্তি খরচ করে এবং উন্নত রঙ প্রদর্শন করে।

আইফোন সরবরাহকারী সূত্রগুলোর মতে, স্বল্প মূল্যের আইফোনটি ৬.১ ইঞ্চি স্ক্রিনের হবে, যা আইফোন এক্স এবং আইফোন ৮ প্লাসের স্ক্রিনের তুলনায় বড়। নতুন আইফোনে বহুল প্রত্যাশিত একটি ফিচার থাকতে পারে, সেটি হচ্ছে- ডুয়াল সিম স্লট। অর্থাৎ প্রথমবারের মতো বাজারে ডুয়াল সিম সাপোর্ট সুবিধার আইফোন আনছে অ্যাপল। কেজিআই সিকিউরিটিজের তথ্যানুসারে, একটি মডেল সিঙেল সিম স্লটের হতে পারে।

ডুয়াল সিম স্লটের আইফোনের মূল্য বেশি হবে। মিং-চি কুও বলেন, ‘ডুয়াল সিমের আইফোন যদি ৬৫০-৭৫০ ডলার মূল্যে বাজারে ছাড়া হয়, তাহলে সিঙেল সিমের আইফোনের দাম রাখা হতে পারে ৫৫০-৬৫০ ডলারের মধ্যে।’

অন্যান্য ফিচারগুলোর ধারণা সম্পর্কে এখনো কোনো গুঞ্জন রটেনি। তবে প্রত্যাশা করা যেতে পারে, কম দামের আইফোনে স্বাভাবিক ভাবেই অ্যাপলের নতুন চিপ এবং শক্তিশালী ফ্রন্ট ক্যামেরা বিদ্যমান থাকবে। অবশ্য ক্যামেরাটি সম্ভবত আইফোন এক্স এবং আইফোন ৮ প্লাসের মতো ডাবল লেন্স সুবিধার হবে না, কারণ অ্যাপল সাধারণত স্বল্প মূল্যের আইফোনে এ ধরনের ফিচার দেয় না।

অ্যাপল যেখানে স্বল্প মূল্যের নতুন আইফোন বাজারে নিয়ে আসছে; সেখানে আবার ৬.৫ ইঞ্চির বিশাল স্ক্রিনের আইফোনও বাজারে আনছে, কয়েকজন বাজার বিশ্লেষকের মতে, বড় স্ক্রিনের আইফোনটির মূল্য ১ হাজার ১০০ ডলার বা তার বেশি মূল্যে শুরু হতে পারে।

অ্যাপল কখনোই তাদের ভবিষ্যত ফোনগুলোর ব্যাপারে অগ্রিম তথ্য প্রকাশ করে না। সুতরাং নিশ্চিত তথ্য জানার জন্য সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। অ্যাপল প্রতি বছরের সেপ্টেম্বরে আইফোনের নতুন মডেল উন্মোচন করে থাকে।

তথ্যসূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

 




রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ এপ্রিল ২০১৮/ফিরোজ

Walton Laptop
 
   
Walton AC