ঢাকা, শুক্রবার, ৮ আষাঢ় ১৪২৬, ২১ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

মওদুদের অবৈধ সম্পদের মামলায় ২ ব্যাংক কর্মকর্তার সাক্ষ্য

মামুন খান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৫-২৩ ৪:২৯:৪৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৫-২৩ ৪:২৯:৪৩ পিএম
Walton AC 10% Discount

নিজস্ব প্রতিবেদক : অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগে দুদকের করা মামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে ২ ব্যাংক কর্মকর্তার সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ ড. শেখ গোলাম মাহবুব এ সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন। সাক্ষীরা হলেন- আইএফআইসি ব্যাংকের ফাস্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট রফিকুল বারী চৌধুরী এবং ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাহাবুব আলী খান।

এ দুই সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত আগামী ২৭ মে পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ধার্য করেন। সাক্ষ্য গ্রহণকালে মওদুদ আহমদ আদালতে উপস্থিত ছিলেন। মামলায় এখন পর্যন্ত ২১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে।

বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৩ জুলাই মওদুদ আহমদকে তার নিজের, স্ত্রীর ও পোষ্যদের নামে-বেনামে অর্জিত যাবতীয় স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ ও তার উৎস জানাতে নির্দেশ দেয় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কারাগারে থাকা অবস্থায় ওই বছরের ২৩ জুলাই সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিল করেন তিনি।

মওদুদ আহমদের দাখিল করা সম্পদের হিসাব বিবরণীতে তার জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয় এমন ৭ কোটি ৩৮ লাখ ৬৪ হাজার ২৮৭ টাকা মূল্যের সম্পদ অর্জন করা এবং ৪ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৫ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করার তথ্য দুদকের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে। একই বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক শরিফুল হক সিদ্দিকী বাদী হয়ে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগে রাজধানীর গুলশান থানায় মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে ২০০৮ সালের ১৪ মে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, মওদুদ আহমদ তার দেওয়া হিসাব বিবরণীতে ৪ কোটি ৪০ লাখ ১৮ হাজার টাকা মূল্যের সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন। জ্ঞাত আয়ের বাইরে ৯ কোটি ৪ লাখ ৩৭ হাজার ২৩৩ টাকার সম্পদের তথ্য পাওয়া গেছে। গত বছরের ২১ জুন মামলায় চার্জ গঠন করেন আদালত।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ মে ২০১৯/মামুন খান/বকুল

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge